ADVERTISEMENT

EV Battery Plant : ১৩,০০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করলো টাটা, এবার লিথিয়াম-আয়ন  ব্যাটারি তৈরি হবে ভারতেই

লিথিয়াম আয়ন সেল ম্যানুফ্যাকচারিং গিগা ফ্যাক্টরি তৈরির জন্য গুজরাত সরকারের সাথে ‘MOU’ স্বাক্ষর করল TATA

ADVERTISEMENT

EV Battery Plant : টাটা গোষ্ঠী (Tata Group), ভারতের অন্যতম বৃহত্তম সংস্থা, গুজরাটে একটি ১৩,০০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছে বৈদ্যুতিক যান ব্যাটারি প্ল্যান্ট (EV Battery Plant) তৈরি করতে। ভারতীয় বাজারে ইভির (EV) ভবিষ্যৎ কে পর্যবেক্ষণ করেই টাটা গ্রুপ এত বিশাল একটি বিনিয়োগ করেছে, এ ব্যাপারে কোন সন্দেহ নেয় বললেই চলে। সুতরাং, ভারতীয় ইভি বাজারের ভবিষ্যৎ কী এবং কেন টাটা এই সুযোগটি হাতছাড়া করছে তা নিয়ে সরাসরি আলোচনা করা যাক।

ADVERTISEMENT

EV Battery Plant : কোথায় হচ্ছে এই লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারির গিগা ফ্যাক্টরি

গুজরাতে লিথিয়াম-আয়ন সেল (EV Battery Plant) ম্যানুফ্যাকচারিং গিগা ফ্যাক্টরি তৈরি করবে টাটা মোটোরস, আর তার জন্য ১৬০ কোটি আমেরিকান ডলার অর্থাৎ ১৩,১৯৭ কোটি টাকা বিয়গ করার কথা জানিয়েছে এই সংস্থা। এর পিছনে টাটার ইলেক্ট্রিক গাড়ির ব্যাবসার সম্প্রসারণ কেই একমাত্র কারণ হিসাবে গণ্য করা যেতে পারে। কারণ অদূর ভবিষ্যতেই টাটা তাদের নতুন নতুন যাত্রীবাহী এবং মালবাহী উভই সেগমেন্টেই একাধিক বৈদ্যুতিক মডেল লঞ্চের পরিকল্পনা করছে। আর সেজন্যই ভারতে এই লিডিং যান নির্মাণকারী সংস্থা ব্যাটারি সরবরাহের জন্য বিদেশের ওপর ভরসা করতে রাজি নয় একেবারেই। সেজন্যই টাটা গুজরাতে লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারি সেল উৎপাদনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।

গাড়ির দুনিয়ায় সর্বোদাই একটি আভিজাত্য রয়েছে টাটার, তা সে বৈদ্যুতিক গাড়িই হোক বা আইসিই ভেহিকেল। সব ক্ষেত্রেই একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে টাটা মোটরস। বর্তমানে এদেশে ইভি মডেলের বৃহত্তম পোর্টফোলিও রয়েছে তাদেরই দখলে। যেমন – Tiago EV, Tigor EV, Nexon EV Prime ও Nexon EV Max। ভবিষ্যতে নিজেদের লাইনআপ আরও অধিক সম্প্রসারণের টার্গেট নিয়েছে টাটা।

গুজরাতের এক প্রশাসনিক আধিকারিক বিজয় নেহরা জানান, “গুজরাত এবং ভারতের ইভি ইকো সিস্টেমের উন্নয়নে এই প্ল্যান্ট অনেক অবদান রাখবে”। উল্লেখ্য, আগামী তিন বছরের মধ্যেই বৈদ্যুতিক গাড়ির ব্যাটারি (EV Battery Plant) তৈরির কারখানায় কাজ শুরু করবে টাটা এবং এর বার্ষিক উৎপাদনের ক্ষমতা থাকবে ২০ গিগা ওয়াট আওয়ার। আবার পরবর্তীতে ম্যানুফ্যাকচারিং ক্যাপাসিটি দ্বিগুণ করার লক্ষ্য নেওয়া হবে।

আরো পড়ুন