Cyber Scam : ফ্ল্যাট বিক্রি করা ১.২৭ কোটি টাকা নিয়ে গেল প্রতারকরা

মুম্বাই এর এক ব্যাক্তি প্রতারণার ফাঁদে পড়ে তার সর্বস্ব হারালেন

Cyber Scam : সোশ্যাল মিডিয়াতে আপনি কার সাথে যোগাযোগ করছেন সে সম্পর্কে সতর্ক থাকুন এবং অচেনা কারোর থেকে বাস্তবের চেয়েও অধিক লাভজনক যদি কোন প্রস্তাব পান, তবে তাদের উপেক্ষা করাই ভাল। সম্প্রতি সেন্ট্রাল মুম্বাইয়ের ৫৩ বছরের একজন বাসিন্দা সাইবার কেলেঙ্কারির শিকার হয়েছেন। ১.২৭ কোটি টাকার বিনিময়ে মুম্বাইতে তার ফ্ল্যাট বিক্রি করার পর, তিনি একটি নতুন সম্পত্তিতে সেই টাকা বিনিয়োগ করতে আগ্রহী ছিলেন। দুর্ভাগ্যবশত, তিনি প্রতারকদের কাছে তার সমস্ত অর্থ হারালেন যারা তাকে একটি পার্টটাইম চাকরির মাধ্যমে উচ্চ আয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে লোভ দেখিয়েছিল।

Cyber Scam : কীভাবে প্রতারিত হয় সেই ব্যাক্তি

TOI-এর রিপোর্ট অনুসারে, এই ঘটনাটির সূত্রপাত হয় ঐ ব্যাক্তির টেলিগ্রামে এক মহিলার পাঠানো একটি ম্যাসেজ থেকে। মহিলার কাছ থেকে তিনি একটি পার্টটাইম চাকরির প্রস্তাব পান। মহিলা তাকে বোঝাই,  যে তাকে সিনেমা এবং হোটেলের লিঙ্কগুলিকে রেট দিতে হবে এবং লাইক করতে হবে, সেইসাথে তার স্ক্রিনশট নিয়ে তাকে পাঠাতে হবে। প্রথমবার, একটি হোটেলের জন্য পজিটিভ রিভিউ ও রেটিং দেওয়ার জন্য তিনি ৭০০০ টাকা উপার্জনও করেছিলেন।

সময়ের সাথে সাথে প্রতারকরা তাকে ক্রমাগত অল্প পরিমাণ অর্থ প্রদান করে ধীরে ধীরে তার বিশ্বাস অর্জন করে। আরও এগিয়ে যাওয়ার জন্য, মহিলা তার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের ডিটেলস্‌ চেয়েছিলেন। সেই মহিলা তাকে তার ই-ওয়ালেট অ্যাক্সেস করার জন্য একটি লগইন ও পাসওয়ার্ড প্রদান করে এবং তাকে একটি অ্যাকাউন্টে ১০,০০০ টাকা জমা দিতে বলে। ইনকামের লোভে তিনিও তার নির্দেশাবলী অনুসরণ করেছিলেন। তারপরে তাকে হোটেল ইন্ডাস্ট্রি সম্পর্কিত একটি ওয়েবসাইটের কিছু বিষয়বস্তুর উপর রেট দিতে বলেন। কাজটি শেষ করে এবং একটি স্ক্রিনশট পাঠানোর পরে, তিনি তার অ্যাকাউন্টে ১৭,৩৭২ টাকা পেয়ে যান।

এরপরে একটি মুভিতে রেটিং করার জন্য তাকে ৩২,০০০ টাকা ডিপোজিট করতে বলা হয় এবং তিনি ৫৫,০০০ টাকা উপার্জন করেন। তারপর তিনি মহিলার অ্যাকাউন্টে আবার ৫০,০০০ টাকা পাঠান, কিন্তু মহিলা জানান যে কোন প্রযুক্তিগত ত্রুটির জন্য তাকে আবার অর্থ প্রদান করতে হবে। চক্রান্তের ফাঁদে পড়ে, তিনি আরও ৫৫,০০০ টাকা পাঠান।

১৭ই মে, মহিলার দেওয়া ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ৪৮ লক্ষ টাকা ট্রান্সফার করেন এবং ই-ওয়ালেটটিতে ৬০ লক্ষ টাকা লাভ করেন। এরপর মহিলা তাকে জানাই যে তার নিজের অ্যাকাউন্টে টাকা ট্রান্সফার করতে তাকে অতিরিক্ত ৩০ লক্ষ টাকা দিতে হবে। ফলস্বরূপ, ১৮ই মে, তিনি প্রতারকের সেই অ্যাকাউন্টে একাধিক লেনদেনের মাধ্যমে ৭৬ লাখ টাকা পাঠান।

সব শর্ত পূরণ করার পরেও তিনি কোনরকম টাকা ফেরৎ পাননি। মহিলাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে সাহস করে আরও টাকা দাবি করে। অবশেষে, তিনি প্রতারিত হচ্ছেন বুঝতে পেরে, অবিলম্বে ঘটনাটি পুলিশকে জানান এবং একটি এফআইআর (FIR) দায়ের করেন। তদন্তে জানা যায়, যে টাকাগুলি পশ্চিমবঙ্গ এবং উত্তর প্রদেশের আটটি বিভিন্ন ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ট্রান্সফার হয়েছিল। এফআইআর অনুসারে, প্রতারিত মোট টাকার পরিমাণ প্রায় ১.২৭ কোটি টাকা। পুলিশ দ্রুত ব্যবস্থা নিয়েছে, সেই আটটি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ করেছে।

আরো পড়ুন